কে জিতবে বলুন তোঃ কলকাতা নাইট রাইডার্স বনাম মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স

0
178
কে জিতবে বলুন তোঃ কলকাতা নাইট রাইডার্স বনাম মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স

আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর আইপিএল এর ৫ম ম্যাচে মহারণে মুখোমুখি হতে যাচ্ছে দুই জায়ান্ট কলকাতা নাইট রাইডার্স আর মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। কলকাতা আর মুম্বাই – আইপিএল এর সবচেয়ে আলোচিত আর আকর্ষণীয় দল। এই আকর্ষণীয় ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে দুবাইয়ের শেইখ জায়েদ স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রাত ৮.০০ টায়। তো চলুন দেখে নেয়া যাক, দুই দলের মধ্যকার লড়াইয়ে কার জেতার সম্ভাবনা বেশী।

১। দলের র‍্যাংকিং – আইপিএল এর দুইবারের চ্যাম্পিয়ন এবং সবচেয়ে আকর্ষণীয় দল কলকাতা তাদের আইপিএল ২০২০ এর পথচলা আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করবে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স এর বিপক্ষে। তার আগে আসুন দেখে নেই, টীম র‍্যাংকিংয়ে কার কোথায় অবস্থান। কলকাতা যেখানে আইপিএল ২০১৯ এ ৫ম স্থান অধীকার করেছিল সেখানে মুম্বাইয়ের অবস্থান ছিল টপে আর স্বভাবতই মুম্বাই অনেক এগিয়ে ছিল যেহেতু তারা আইপিএল ২০১৯ এর চ্যাম্পিয়ন দল।

২। হোম অ্যাডভান্টেজ – ম্যাচটি হবে আবুধাবির শেইখ জায়েদ স্টেডিয়ামে। যেহেতু, করোনা এর কারণে আইপিএল ভারতে হচ্ছে না এবার, তাই কোন দলই হোম অ্যাডভান্টেজ পাচ্ছে না এবার।

৩। বর্তমান ফর্ম – যদিও আইপিএল ১৩ এর প্রথম ম্যাচে মুম্বাই চেন্নাইয়ের কাছে পরাজিত হয়েছে, তবুও ফর্মের বিচারে কলকাতা কোনভাবেই মুম্বাইয়ের সমকক্ষ নয়। তার প্রমান গত মৌসুমেই মুম্বাই যেখানে ১৮ পয়েন্ট অর্জন করেছিল সেখানে কলকাতার অর্জন ছিল ১২ পয়েন্ট। পয়েন্ট ছাড়াও, মুম্বাই ছিল গত মৌসুমের চ্যাম্পিয়ন যেখানে কলকাতা এমনকি প্লেঅফের টিকেটও অর্জন করতে পারেনি।

৪। মুখোমুখি ফলাফল – মুখোমুখি ফলাফল বিবেচনা করলে মুম্বাই যোজন যোজন ব্যবধানে এগিয়ে কলকাতার চেয়ে। শেষ দশ ম্যাচের আটটিতেই কলকাতাকে পরাজিত করেছে মুম্বাই। সার্বিকভাবে হিসাব কষলে ফলাফল কলকাতার জন্য আরও অনেক বেশী লজ্জাজনক। এপর্যন্ত দুদল মোট ২৫বার মুখোমুখি হয়েছে যেখানে মুম্বাই ১৯বার জয়ী হয়েছে আর কলকাতার জয় মাত্র ৬ ম্যাচে।

৫। মাঠের অবস্থা – শেখ জায়েদ স্টেডিয়াম – আবুধাবি টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের দুর্দান্ত জায়গা যেখানে উইকেট পুরোপুরি সমতল এবং বল দ্রুতগতিতে ধাবমান হয়।

৬। প্লেয়ার এনালাইসিস –

ব্যাটসম্যান এনালাইসিস

মুম্বাই ব্যাটসম্যান কুইন্টন ডি কুকের গড় ৩৩.৩৯ আর স্ট্রাইক রেট ১৩৮.৫১। আরেক টপ ব্যাটসম্যান ও মুম্বাই অধিনায়ক রোহিত শর্মার গড় ৩২.২৪ আর স্ট্রাইক রেট ১৩৩.৭১

কলকাতা ব্যাটসম্যান শুবমান গিলের গড় ২৯.৩৫ আর স্ট্রাইক রেট ১৩২.৩৬। কেকেআর এর আরেক টপ ব্যাটসম্যান টম ব্যান্টনের গড় ২৯.৫৪ আর স্ট্রাইক রেট ১৫৪.১৬

বোলার এনালাইসিস

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের পেসার জাস্প্রিত বুমরাহের গড় ২২.৫১ আর ইকনমি ৭.০৬। আরেক টপ বোলার ট্রেন্ট বোল্টের গড় ২৯.৪৭ আর ইকনমি ৮.৭৮

অন্যদিকে, কলকাতা এবং আইপিএল ইতিহাসের বিদেশি ক্যাটাগরির সবচেয়ে দামি খেলোয়াড়, অস্ট্রেলিয়ান পেসার প্যাট কামিন্সের গড় ২৯.৩৫ আর ইকনমি ৮.২৯। আরেক টপ বোলার সুনীল নারাইনের গড় ২৩.৩২ আর ইকনমি ৬.৬৩

সুতরাং, উপরের আলোচনা থেকে অনেকটাই স্পষ্ট যে, মুম্বাই প্রায় সবদিক থেকেই এগিয়ে কলকাতার চাইতে। কলকাতা শেষ ১০ ম্যাচের মাত্র ২ টিতে জিতেছে মুম্বাইয়ের বিপক্ষে আর ৮টিতেই হেরেছে। এত প্রতিকূলতা পেরিয়ে আর মুম্বাই জুজু কাটিয়ে উঠে যদি কলকাতা জয়লাভ করে তবে সেটি হবে নিঃসন্দেহে বিশাল ব্যাপার। দেখা যাক, কি হয়!

৭। পিচ বিবরণী – দুবাই স্টেডিয়ামের পিচ পুরোপুরি সমতল যা স্পিন আর ব্যাটিংয়ে সহায়ক ভীষণ। স্কোর আনুমানিক ১৭০-১৮০ এর মত হয় এখানে।

আরও একটি ব্যাপার সেটা হচ্ছে –

আবহাওয়া, ইনজুরি, ইত্যাদি কারণে অনেক সময় অনেক কিছু পরিবর্তন হয়, যদিও সেগুলো অনাকাঙ্ক্ষিত ও অনভিপ্রেত“।

কলকাতা নাইট রাইডার্স স্কোয়াড

আন্দ্রে রাসেল, দীনেশ কার্তিক, হ্যারি গুর্নি, কমলেশ নাগরকোটি, কুলদীপ যাদব, লকি ফার্গুসন, নীতীশ রানা, প্রসিদ্ধ কৃষ্ণ, রিঙ্কু সিং, সন্দীপ ওয়ারিয়র, শিবম মাভি, শুভমন গিল, সিদ্ধেশ লাদ, সুনীল নারাইন, প্যাট কামিনস, ইওন মরগান, বরুণ চক্রবর্তী , টম ব্যান্টন, রাহুল ত্রিপাঠি, ক্রিস গ্রিন, নিখিল নায়েক, প্রবিন তাম্বে, এম সিদ্ধার্থ।

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স স্কোয়াড

আদিত্য তারে, আনমলপ্রীত সিং, অনুুল রায়, ধাওয়াল কুলকার্নি, হার্ডিক পান্ড্য, ইশান কিশান, জাসপ্রিত বুমরাহ, জয়ন্ত যাদব, কাইরন পোলার্ড, ক্রুনাল পান্ড্য, লাসিথ মালিঙ্গা, মিচেল ম্যাকক্লেনাঘন, কুইন্টন ডি কক, রাহুল চাহার, শেরফানে রথারফোর্ড, সুরিয়াকুমার যাদব, ট্রেন্ট বোল্ট, নাথান কুল্টার-নীল, ক্রিস লিন, সৌরভ তিওয়ারি, দিগ্বিজয় দেশমুখ, যুবরাজ বলবন্ত রায় সিং, মহসিন খান।

সুপ্রিয় পাঠকেরা, সবকিছু বিবেচনায় আপনাদের মতে কে শেষ পর্যন্ত জিততে পারে ম্যাচটি? কমেন্ট করে জানিয়ে দিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here