জাস্টিন ল্যাঙ্গারের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফুঁসছেন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটাররা

0
90
জাস্টিন ল্যাঙ্গারের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফুঁসছেন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটাররা

অস্ট্রেলিয়ান সাবেক লিজেন্ডারি ব্যাটসম্যান জাস্টিন ল্যাঙ্গারকে যখন প্রথম অস্ট্রেলিয়ার কোচ হিসেবে নিয়োগ দেয়া হল তখন বেশিরভাগ খেলোয়াড়েরাই বেশ উচ্ছসিত হয়েছিলেন। এমনকি তার হাত ধরে তাঁদের পথচলাও হয়েছিল বেশ মসৃণ। কিন্তু, সময়ের সাথে এটি এখন ধূসর হতে শুরু করেছে। খেলোয়াড়েরা ধীরে ধীরে বিদ্রোহ শুরু করেছেন এবং নিজেদের অসন্তুষ্টির কথা প্রকাশ্যেই আনছেন। শুরুর সুন্দর পথচলার পর হঠাৎ এমন বিদ্রোহ কেন শুরু হল সেটা নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা।

জাস্টিন ল্যাঙ্গারের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফুঁসছেন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটাররা

গেল বিশ্বকাপ ব্যর্থতার পর কিছুটা শোরগোল উঠতে শুরু করে। বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে বিদায়টা ঠিক হজম করতে পারেনি অনেকেই। এরপর ভারতের সাথে সাম্প্রতিক সময়ে টেস্ট সিরিজ হারের পর বিষয়টা বড় হয়ে সামনে আসছে। অনেকেই এমন বিদায়টা মেনে নিতে পারছেন না। অস্ট্রেলিয়ান ক্রীড়া দৈনিক “দ্য সিডনি মর্নিং হেরাল্ড” এমনটাই জানাচ্ছে। ল্যাঙ্গারের অতিরিক্ত খুঁতখুঁতানি স্বভাবে নাকি বিরক্ত অসি ক্রিকেটাররা।

বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন, ল্যাঙ্গারের বেশ কিছু কর্মকাণ্ডে তারা প্রচণ্ডমাত্রার বিরক্ত। করোনাভাইরাসের এই দুঃসময়ে যখন ক্রিকেটাররা কোয়ারেনটিন আর বায়োবীয় সুরক্ষার বলয়ে ক্লান্ত, তখন নাকি আরও বেশি তেঁতে উঠছেন ল্যাঙ্গার। ক্রমাগতভাবে আরও বেশি দিকনির্দেশনা চাপিয়ে দিচ্ছেন তাদের উপর। এমনকি, দুপুরের খাবারের সময়ও নাকি তাঁদের নানারকম পরিসংখ্যান তুলে ধরে ত্যক্ত-বিত্যক্ত করা হয় ও বিভিন্ন রকম অর্থহীন দায়িত্তের বোঝা চাপিয়ে দেয়া হয়। এমন লাগাতার নির্দেশনা এখন তাঁদের কাছে দায়িত্ত পালনের তাগিদের পরিবর্তে বিরক্তির বোঝা বাড়িয়ে দিয়েছে বহুগুণে।

ল্যাঙ্গারের হেডমাস্টারসুলভ ব্যবহার কাজে আসছেনা

যার ফলে, এখন হিতে বিপরীত হওয়ার আশঙ্কাই সৃষ্টি হয়েছে। এমন হতাশাজনক আচরণের ফল মাঠেও নাকি অনুবাদিত হতে পারে এমন আশংকাই এখন ঘনীভূত। অনেকেই মনে করছেন, ভারতের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ হারের পিছনেও নাকি ল্যাঙ্গারের এমন আচরণ বহুলাংশে দায়ী! তার প্রতি ক্ষোভের কারণেই নাকি অনেক খেলোয়াড় তাঁদের সেরাটা সেভাবে দিতে পারছেন না। বিরক্তি কাজ করছে তাঁদের মনের ভিতর। তবেঁ, সামনের দিনগুলিতে হয়তবা বিষয়গুলো আরও ভালভাবে পরিষ্কার হবে।

ভারতের বিপক্ষে ব্রিসবেন টেস্ট চলাকালীন এক খেলোয়াড় মাঠে স্যান্ডউইচ নিয়ে যাওয়ার সময় তার ওপর চটে যান ল্যাঙ্গার। এটা নাকি ওই খেলোয়াড়ের দির্ঘদিনের অভ্যাস। তবুও নাকি ল্যাঙ্গার তাকে এজন্যে ঝেড়েছেন। যদিও এরপর পরিপূর্ণভাবে আত্মপক্ষ সমর্থন করেছেন তিনি। তিনি নাকি দলের স্বার্থেই এটি বলেছিলেন। তবেঁ, যেভাবে তার বিরুদ্ধে খেলোয়াড়েরা ফুঁসলিয়ে উঠছে, এভাবে কতদিন চালানো সম্ভব তার পক্ষে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here